কিভাবে ই-পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করতে হয়।

কিভাবে ই-পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করতে হয়।

আপনার কি ই-পাসপোর্ট আবেদনে ভুল হয়েছে?ভুল হওয়ার কারনে কি পাসপোর্টের জন্য করা আবেদন বাতিল করতে চান!চিন্তার কোনো কারন নেই আজকের পোষ্টের মাধ্যমে কিভাবে ই-পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করতে হয় তা জানতে পারবেন।

অনলাইনে ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করার পর যদি দেখা যায় কোনো তথ্য ভুল করেছেন।অথবা পাসপোর্ট অফিসে জমাকৃত আবেদনের কিছু ভুল ধরে অফিস আবেদনটি ফেরত দিয়েছে।তাহলে পরবর্তীতে আপনার করণীয় কি থাকতে পারে?

আপনি যদি ভুল করা আবেদনটি বাতিল করতে চান তাহলে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের পরিচালক বরাবর একটি লিখিত আবেদন করতে হবে।

আপনি যদি একবার পাসপোর্টের জন্য আবেদন করে ফেলেন ভুল হলেও তা সংশোধন করা যাবে না।আপনি আপনার একই আইডি কার্ড দিয়ে বার বার পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারবেন না। একটি NID দিয়ে মাত্র একবারই পারবেন আবেদন করতে।

তবে, আপনি পাসপোর্ট অফিসের সহায়তায় আবেদনটি সংশোধন করে নিতে পারবেন।

তো চলুন আর দেরি না করে এখন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে ই-পাসপোর্টের আবেদন বাতিল করার দরখাস্ত লিখতে হয়।

আপনার জন্য প্রয়োজনীয় কিছু পোষ্টঃ

জাতীয় পরিচয় পত্র বাতিল করার নিয়ম।

জেনে নিন ছবি তোলার কতদিন পর এনআইডি কার্ড হাতে ।

অনলাইনে বাতিল করুন ই-পাসপোর্ট

আপনার অনলাইনে করা ই-পাসপোর্ট এর আবেদন খুব সহজেই আঞ্চলিক অফিসের সহকারী পরিচালক বরাবর একটি লিখিত আবেদন করতে হবে।

তবে অবশ্যই অনলাইনে আবেদনের এপ্লিকেশন সামারি পেইজের কপিটি লিখিত দরখাস্তের সাথে যুক্ত করে নিবেন।

আপনি যেদিন আবেদন বাতিল করার জন্য লিখিত দরখাস্ত করবেন সেদিনই ই-পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করতে পারে। তবে যদি সময় লাগে সর্বোচ্চ ১-২ দিন নিবে ই-পাসপোর্ট বাতিল করতে।

তবে অবশ্যই মনে রাখবেন পাসপোর্ট অফিসের আশেপাশে অনেক দালাল থাকবে যারা খুব কম সময়ে ই-পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার জন্য বাড়তি টাকা চাইতে পারে।তাই দালাল থেকে সাবধানে থাকবেন।

See also  রোমানিয়ার ভিসা চেক করার সব থেকে সহজ নিয়ম ২০২৩

যদিও পাসপোর্ট আবেদন অফিসে জমা না দিলেও ৬ মাস পর অটোমেটিকভাবে বাতিল হয়ে যাবে।তবে শুধু শুধু ৬ মাস অপেক্ষা না করে লিখিত আবেদন করেই একদিনেই আবেদন বাতিল করা উচিত ।

কারন বাতিল করার পর আবার সঠিকভাবে সেদিন বা তার পরদিনই নতুন করে ই-পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

আবেদন বাতিলের জন্য লিখিত দরখাস্ত

তারিখঃ আবেদন সময়।

বরাবর,

সহকারী পরিচালক,

আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস,

বরিশাল।

বিষয়ঃ ই-পাসপোর্ট বাতিল করার জন্য আবেদন।

জনাব,

মূল বক্তব্য কম্পিউটার দোকান থেকে সংগ্রহ করে নিবেন।মূল বক্তব্য লেখার পর আপনার নাম,মোবাইল নাম্বার নিচে দিয়ে দিবেন।

শেষ কথা

কিভাবে ই-পাসপোর্ট বাতিল করতে হয় তার সহজ উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করলাম।যারা খুব সহজে ই-পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করতে চান তারা উপরের বিষয়গুলো ফলো করতে পারেন। ধন্যবাদ।